মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

মাসিক সভার সিদ্ধান্ত

 

 

ক্রমিক নং

আলোচ্য বিষয়

আলোচনা

সিদ্ধামত্ম

দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা/ব্যক্তি

০১

পরিচিতি পর্ব ও স্বাগত বক্তব্য ।

সভাপতি উপস্থিত সকল নব নির্বাচিত সদস্যগণের দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন যে, নবগঠিত পরিষদের সকল সদস্য একে অপরের সাথে পরিচিত হওয়া প্রয়োজন । তিনি সভায় উপস্থিত পরিষদের সকল সদস্যের নিজ নিজ পরিচিতি প্রদানের জন্য অনুরোধ করেন । পরিচিতি পর্ব শেষে স্বাগত বক্তব্য প্রদানের জন্য সভাপতি সাহেবকে অনুরোধ করা হয় ।  সভাপতির স্বাগত বক্তব্যে ইউনিয়নের উন্নয়ন, আইন শৃঙ্খলা রক্ষা, পরিষদের সম্মান বজায় রাখা ইত্যাদি বিষয় উত্থাপিত হয় । 

 

নবগঠিত পরিষদের সকল সদস্য নিজ নিজ পরিচিতি প্রদান করেন এবং ইউনিয়নের উন্নয়নে একযোগে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন ।                                                                             

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল ।

০২

 

 

 

 

 

 

প্রতি মাসের মাসিক সভার তারিখ নির্ধারণ ।

 

 

সভাপতি সাহেব জানান  যে , প্রতি মাসের মাসের মাসিক সভা অনুষ্ঠানের জন্য একটি নির্দিষ্ট তারিখ নির্ধারণ করা আবশ্যক । তিনি সভায় উপস্থিত সকলকে প্রতি মাসের মাসের মাসিক সভার  তারিখ নির্ধারনের জন্য অনুরোধ করেন ।      

বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর প্রতি মাসের মাসের মাসিক সভা অনুষ্ঠানের জন্য প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহের বুধবার   নির্ধারণ করা হয় । ঐ দিন সরকারী ছুটি হলে পরবর্তী কার্যদিবসে সভা অনুষ্ঠানের বিষয়ে সভায় সর্বসম্মত সিদ্ধামত্ম হয় ।

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল ।

০৩

স্ট্যান্ডিং কমিটি গঠন ।

সভাপতি সাহেব জানান  যে, ইউনিয়ন পরিষদ অপারেশনাল ম্যানুয়েল অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদের ১৩ টি স্ট্যান্ডিং কমিটি রয়েছে । নবগঠিত পরিষদের ১ম সভায় স্ট্যান্ডিং কমিটিসমুহ গঠন করার বিধান আছে । শুধুমাত্র আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি হবেন ইউপি চেয়ারম্যান এবং অবশিষ্ট ১২ টি কমিটির সভাপতি হবেন ১২ জন ইউপি সদস্য । প্রতিটি কমিটি হবে ৫ সদস্য বিশিষ্ট । ইউনিয়নের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং বিশেষজ্ঞ ব্যক্তি কমিটিসমুহের সদস্য হবেন । উক্ত কমিটিসমুহ প্রতি ২ মাস পর পর সভায় মিলিত হবেন । স্ট্যান্ডিং কমিটিসমুহ গঠনের জন্য তিনি সকলকে অনুরোধ করেন ।

বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর নীতিমালা অনুযায়ী স্ট্যান্ডিং কমিটিসমুহ গঠন করা হয় এবং গঠিত উক্ত কমিটিসমুহ সর্বসম্মতভাবে গৃহিত ও অনুমোদিত হয় ।

 

    স্ট্যান্ডিং কমিটিসমুহ- পরিশিষ্ট-খ

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল ।

০৪

জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ সংক্রামত্ম ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন ।

সভাপতি সাহেব সভাকে অবগত করেন  যে, দেশে বর্তমানেজঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে । তাই সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী এ সকল নাশকতামূলক কাজ প্রতিরোধের জন্য  জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ সংক্রামত্ম ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা আবশ্যক । কমিটিসমুহ গঠনের জন্য তিনি সকলকে অনুরোধ করেন ।

বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ সংক্রামত্ম ২৫ সদস্যবিশিষ্ট ইউনিয়ন কমিটি ও ৫ সদস্যবিশিষ্ট ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয় এবং উক্ত গঠিত কমিটিসমুহ সর্বসম্মতভাবে গৃহিত ও অনুমোদিত হয় ।

    কমিটিসমুহ- পরিশিষ্ট-গ

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল ।

 

 

ক্রমিক নং

আলোচ্য বিষয়

আলোচনা

সিদ্ধামত্ম

দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা/ব্যক্তি

০৫

জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা হতে সকল সরকারী স্থাপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত করণ প্রসঙ্গে ।

সভাপতি সাহেব সভাকে অবগত করেন  যে, দেশে বর্তমানেজঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে । তাই সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা হতে সকল সরকারী স্থাপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আবশ্যক। ইউনিয়ন পরিষদে কর্মরত গ্রাম পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে ইউনিয়ন তথা ওয়ার্ডের সকল সরকারী স্থাপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব । তাছাড়া ইউনিয়ন পরিষদ কমপেস্নক্স ভবন নিরাপত্তার প্রয়োজন।  এ বিষয়ে করনীয় সম্পর্কে  তিনি সকলকে অনুরোধ করেন । 

 

বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধে গ্রাম পুলিশ বাহিনী নিয়ে সকল সদস্য নিজ নিজ ওয়ার্ডে অবস্থিত সরকারী স্থাপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং বিগত পরিষদে  বিভাজিত দায়ীত্ব অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদের দায়ীত্ব পালন করার সিদ্ধামত্ম সর্বসম্মতভাবে গৃহিত ও অনুমোদিত হয় ।

 

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল ।

০৬

ভিÿাবৃত্তির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের ডাটাবেজ তৈরীকরণ প্রসঙ্গে ।

 

সভাপতি সাহেব সভাকে অবগত করেন  যে, অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকে দক্ষিন এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান অন্যতম । সমাজের সকল শ্রেনীর মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ব্যতিত টেকসই উন্নয়ন যেমন সম্ভব নয় তেমনি ভিশন-২০২১ অর্জন করাও সম্ভব হবে না । উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার লক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন । ভিক্ষাবৃত্তি বন্ধ করার নিমিত্ত তথা সমাজ থেকে ভিক্ষুকমুক্ত করার লক্ষে এর সাথে জড়িত ব্যক্তিদের একটি  পূর্ণাঙ্গ ডাটাবেজ তৈরী করা প্রয়ো্জন ।

এ বিষয়ে করনীয় সম্পর্কে  তিনি সকলকে অনুরোধ করেন ।

 

বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর ভিক্ষাবৃত্তি বন্ধ করার নিমিত্ত তথা সমাজ থেকে ভিক্ষকমুক্ত করার লক্ষে এর সাথে জড়িত ব্যক্তিদের একটি  পূর্ণাঙ্গ ডাটাবেজ তৈরীর জন্য নিজ নিজ ওয়ার্ডের ভিক্ষুকদের তালিকা ইউনিয়ন পরিষদে প্রদানের জন্য সকল সদস্যকে অনুরোধ করা হয় ।

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল

০৭

চেয়ারম্যানের প্যানেল গঠণ  সংক্রামত্ম ।

 

অদ্যকার সভার সভাপতি জানান যে, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিয়ানীবাজার মহোদয়ের কার্যালয়ের  ০৪ আগষ্ট ২০১৬ ইং তারিখের  ৬৯৪ নং স্মারকের প্রেক্ষিতে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ - এর  ৩৩ ধারা অনুযায়ী পরিষদের  ১ম সভার  ৩০ (ত্রিশ) কার্যদিবসের মধ্যে অগ্রাধিকারক্রমে সদস্যদের মধ্য হতে ০৩ (তিন) সদস্যবিশিষ্ট একটি চেয়ারম্যানের প্যানেল গঠন করা আবশ্যক। তিনি আরও জানান যে, উপস্থিত সকল সদস্যের মতামত থাকলে অদ্য তারিখেই চেয়ারম্যানের প্যানেল গঠন করা সম্ভব । সভায় উপস্থিত ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য জনাব শাহাব উদ্দিন চেয়ারম্যানের প্যানেল গঠণের জন্য প্রসত্মাব করেন।  উপস্থিত সদস্যগণ উক্ত প্রসত্মাবের সাথে একমত পোষণ করেন এবং  চেয়ারম্যানের প্যানেল গঠনের জন্য সভাপতিকে অনুরোধ করেন ।

সভায় বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর  প্যানেল চেয়ারম্যান-১ ও প্যানেল চেয়ারম্যান-৩ পদে একাধিক প্রার্থী থাকায়  উপস্থিত সদস্যগণের মতামতের ভিত্তিতে উক্ত পদসমুহে কন্ঠভোটে এবং প্যানেল চেয়ারম্যান-২ পদে একজন প্রার্থী থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নিমণবর্নিত চেয়ারম্যানের প্যানেল গঠিত হয় এবং সভায় উক্ত চেয়ারম্যানের প্যানেল সর্বসম্মতিক্রমে গৃহিত হয় ।

১.জনাব শাহাব উদ্দিন- প্যানেল চেয়ারম্যান-১

২. জনাব শামছ উদ্দিন- প্যানেল চেয়ারম্যান-২

৩. রোকশানা বেগম-   প্যানেল চেয়ারম্যান- ৩     

    উপরোক্ত গঠিত চেয়ারম্যানের প্যানেলটি পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর প্রেরণের সর্বসম্মত সিদ্ধামত্ম গৃহিত হয়।

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল

০৮

ইউনিয়নাধীন কলোনীর তালিকা প্রনয়ন প্রসঙ্গে ।

সভাপতি সাহেব সভাকে অবগত করেন  যে, দেশে বর্তমানেজঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে ।  এ সকল নাশকতামূলক কাজ  প্রতিরোধের অংশ হিসাবে ইউনিয়নাধীন কলোনীর তালিকা প্রনয়ন করা আবশ্যক । তাই ইউনিয়নাধীন কলোনীর তালিকা প্রনয়ন জন্য তিনি সকলকে অনুরোধ করেন ।

বিসত্মারিত আলোচনা ও পর্যালোচনার পর জঙ্গি, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধে ইউনিয়নাধীন কলোনীর তালিকা প্রনয়ন করার সিদ্ধামত্ম সর্বসম্মতভাবে গৃহিত ও অনুমোদিত হয় ।

ইউনিয়ন পরিষদ ও সংশিস্নষ্ট সকল ।

 

            আর কোন আলোচনা না থাকায় সভাপতি সাহেব উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।   

 

 

 

 

সভায় বিগত ষবার কার্যবিবরনী পাঠ করা হয় এবং সর্বসম্মিতিক্রমে পাঠ করা হয় ।

১ম প্রস্তাবঃ-

সভায় অত্র ইউনিয়নের বিগত ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরের  এলজিএসপি--২ এর প্রকল্প গুলির যত তাড়াতাড়ি সম্ভম শুরু করে সংশ্লিষ্ট সদস্য বৃন্দকে অনুরোদ জানানো হয়। কেন না ঐ কাজ শেষ করে পরে pbg এর প্রাপ্ত টাকা দিয়ে প্রকল্পের কাজ শুরু করা প্রয়োজন । এ ব্যাপারে সকল সদস্যবৃন্দ সর্বসম্মত মতামত দেন ।

২য় প্রস্তাবঃ-

সভায় সরকার হইতে যাহাদের জমি আছে ঘর নাই তাহাদের অর্থ ভাবে বাসগৃহ নির্মান করতে পারতে না তাহাদের জন্য ইউনিয়নে তিনটি ঘর নির্মানের জন্য পত্র পাওয়া গিয়াছে বলিয়া সভাপতি সাহেব সভায় উপস্থিত সকল সদস্যবৃন্দ কে অবহিত করে । ব্যাপক আলাপ আলোচনা ও মত বিনিময় হয় । আলোচনার পর যাচাই বাচাই করে ইউনিয়নে মধ্যে থেকে তিনটি  পরিবার কে সরকার কৃর্তক ঘর তৈরী করার প্রস্তাব গৃহিত হয় ।

 

৩য় প্রস্তাবঃ-

সরকার হইতে ইউনিয়নের গরীব ও দুস্থ ব্যক্কিদের জন্য ২৫টি কম্বল পাওয়া গিয়াছে বলিয়া চেয়ারম্যান সাহেব জানান। এ ব্যাপারে আলোচনার পর সর্বসম্মিক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় য়ে প্রতিটি ওয়ার্ডের ২ জন গরীব লোকের মধ্য কম্বল বিতরনে প্রস্তাব সর্বসম্মত ভাবে গৃহীত হয় ।

সভায় অন্য কোন প্রস্তাব না থাকায় সভাপতি সাহেবের অনুরোধে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করা হয় ।


Share with :

Facebook Twitter